The first chapter

 বিশ্বগ্রামের ধারণা (Concept of Global Village) :

 তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির সবচেয়ে বড় অবদান হচ্ছে বিশ্বগ্রাম ব্যবস্থা। মার্শাল ম্যাকলুহান সর্বপ্রথম বিশ্বগ্রামের ধারণা দেন। সারা পৃথিবী , মানুষের হাতের নাগলের মাঝে থাকবে। হাজার হাজার মাইলের দূরত্ব বলতে কিছু থাকবে না। পরস্পর যুক্ত থাকা, তথ্য আদান-প্রদান ছাড়াও শিক্ষা, শিল্প, বাণিজ্য, বিনোদন সর্বত্রই ডিজিটাল যন্ত্রের পরিপূর্ণ নিয়ন্ত্রণ থাকবে। নতুন পেশার উদ্ভব হবে, নতুন জ্ঞানের বিস্তার হবে, নতুন প্রজন্ম বেড়ে উঠবে। প্রচলিত ধ্যান-ধারনা ভেঙ্গে পড়বে। সামাজিক সম্পর্ক, এমন কি রাষ্ট্র, সরকার, প্রশাসন পরিবর্তিত হবে। সকল ক্ষেত্রেই মানুষের জ্ঞানের যে পরিধি তা বিস্তৃত হবে। ফলে মানুষ নতুন ধ্যান-ধারণা থেকে ব্যক্তি স্বাধীনতা, মৌলিক অধিকার, রাষ্ট্র সরকার বা ব্যক্তির দায়িত্ব ও কর্তব্য এমন কি পারিবারিক সম্পর্ক নতুন করে সংজ্ঞায়িত করবে। মানব সভ্যতার আর কোনো যুগে এত পরিবর্তন আর কোনোদিন হয়নি যা তথ্য যুগে হয়েছে, হচ্ছে এবং হবে।

বিশ্বগ্রামের সংজ্ঞা ঃ মার্শাল ম্যাকলুহান এর মতে “ইলেকট্রনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে বিশ্ব একটি গ্রামে পরিণত হয়েছে এবং বিশ্বের যে কোন প্রান্তের সাথে অতি সহজেই যোগাযোগ করা সম্ভব”।

** বিশ্বায়নের সুবিধাসমূহ —

১। সহজে দারিদ্র্য দূরীকরণ করা যায়।
২। ব্যবসা- বাণিজ্যের বাজার সম্প্রসারণ করা যায়।
৩। শ্রমের অবাধ গতিশীলতা আনয়ন করা যায়।
৪। সহজে শিক্ষা ও জ্ঞানের বিকাশ বৃদ্ধি করা যায়।
৫। দ্রুত প্রযুুক্তির বিকাশ সাধন করা যায়।
৬। একচেটিয়া বাজারের অবসান করা যায়।
৭। আন্তর্জাতিক সম্পীতির বন্ধন মজবুত করা যায়।

** তথ্য প্রযুক্তি —

তথ্য প্রযুক্তি বলতে তথ্য সংগ্রহ , প্রক্রিয়াকরণ এবং বিতরণের জন্য ব্যবহৃত ব্যবস্থাকে বুঝায়।
অর্থাৎ তথ্য সংগ্রহ , সংরক্ষণ ,প্রক্রিয়াকরণ , আধুনিকীকরণ রক্ষণাবেক্ষণ , সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা এবং বিতরণের জন্য যে প্রক্রিয়া এবং পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়, তাদের সমন্বয়কে বলা হয় তথ্য প্রযুক্তি।

** তথ্য প্রযুক্তির উপাদানসমূহ–

ক) কম্পিউটার এবং কম্পিউটার সংশ্লিষ্ট যন্ত্রপাতিসমূহ
খ) সফটওয়্যার বা প্রোগ্রাম সমূহ
গ) হিউম্যানওয়্যার বা কম্পিউটার ব্যবহারকারীগণ
ঘ) ডাটা বা ইনফরমেশন
ঙ) যোগাযোগের মাধ্যমে বা নেটওয়ার্ক মাধ্যমে
চ) কার্যপদ্ধতি বা প্রসিডিউর ইত্যাদি ।

** তথ্য প্রযুক্তির অবদানগুলো বা বৈশিষ্ট্যগুলো–

১) সময়ের সাথে কাজের খরচ কমতে থাকে ।
২) কাজের পরিমান ক্রনান্বয়ে বাড়তে থাকে ।
৩) শিক্ষণ ও সংশ্লিষ্ট কর্মকান্ডের গতিকে তরান্বিত করে।
৪) ব্যবসা- বাণিজ্যে লাভজনক প্রক্রিয়া সৃষ্টি করে।
৫) মনুষ্য শক্তির বৃথা অপচয় ঘটে না।
৬) এতে খরচ কমে যায়।
৭) এতে সময় বাঁচে।
৮) তাৎক্ষণিক যোগাযোগ সম্ভব।
৯০ ব্যয় সংকোচন হয়।
১০) দক্ষতা বৃদ্ধি পায়।
১১) সহজে তথ্য পাওয়া যায়।

** যোগাযোগ প্রযুক্তি বা কমিউনিকেশন টেকনোলজি কি ?

যেই প্রযুক্তির সাহায্যে তথ্য বা উপাত্ত বা বার্তা এক স্থান থেকে প্রেরণ ও গ্রহণ কাজটি সম্পন্ন করা যায় তাকে ( সেই প্রযুক্তিকে) যোগাযোগ প্রযুক্তি বা কমিউনিকেশন টেকনোলজি বলা হয়।

** যোগাযোগ প্রযুক্তির মৌলিক বিষয়সমূহ কি কি ?

যোগাযোগ প্রযুক্তির মৌলিক বিষয়সমূহ হচ্ছে –
ক) কম্পিউটার
খ) ডিজিটাল টেলিফোন
গ) মোবাইল ফোন
ঘ) সেটেলাইট
ঙ) রেডিও
চ) ইন্টারনেট
ছ) ই-মেইল ইত্যাদি

** যোগাযোগের মৌলিক বিষয়সমূহ —

ক) কম্পিউটার
খ) টেলিফোন
গ) মোডেম
ঘ) সেলুলার ফোন
ঙ) সেটেলাইট
চ) রেডিও ওয়েভ
ছ) ইন্টারনেট
জ) ই-মেইল ইত্যাদি

** ইলেক্ট্রনিক মেইল বা ই-মেইল —

Electronic mail শব্দটির সংক্ষিপ্ত রুপ হচ্ছে ই-মেইল। যে পদ্ধতির মাধ্যমে অতি সহজে এবং দ্রুত সংবাদ বা খবর প্রেরণ করা যায় তাকে ইলেক্ট্রনিক মেইল বলে। ইলেক্ট্রনিক মেইলকে সংক্ষেপে ই-মেইল বলা হয়। ইন্টারেনেটে তথ্যের আদান-প্রদান করার জন্য ই-মেইল ব্যবহার করা হয়। ই-মেইল বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে স্বল্পব্যয়ী এবং দ্রুততম ইলেকট্রনিক যোগাযোগ মাধ্যম।

** টেলিকনফারেন্সিং —
প্রচলিত অর্থে টেলি কনফারেন্সিং মানে হল টেলিফোন ব্যবস্থায় দুই এর বেশী লোকের সংলাপ। একই অফিসের শাখা অফিস ভিন্ন ভিন্ন শহরে থাকে। তাদের মধ্যে সবসময় যোগাযোগ রক্ষা করার দরকার। টেলিযোগাযোগের মাধ্যমে এই ধরনের যোগাযোগ রক্ষা করাকে টেলি কনফারেন্সিং বলে।

অর্থাৎ কম্পিউটার ব্যবহার করে টেলিকমিউনিকেশন ব্যবস্থার সাহায্যে দুই বা ততোধিক ব্যক্তির তথ্য আদান-প্রদানকে টেলিকনফারেন্সিং বলা হয়।

** ভিডিও কনফারেন্সিং —
যে ব্যবস্থার মাধ্যমে টেলিভিশনের পর্দায় বিভিন্ন অংশগ্রহনকারী পরস্পরের সম্মুখীন হন এবং কথোপকথনে অংশগ্রহন করেন সেই ব্যবস্থাকে ভিডিও-কনফারেন্সিং বলা হয়। এটি একটি ক্রমবর্ধমান আন্তর্জাতিক যোগাযোগ ব্যবস্থা।

** ভার্চুয়াল রিয়েলিটি–
যে প্রযুক্তি ত্রিমাত্রিক বিশ্ব সৃষ্টি করে কৃত্রিমভাবে কোন ঘটনা বা কল্পনাকে জীবন্ত করে দৃষ্টিগ্রাহ্য করে তোলে তাকে ভার্চুয়াল রিয়েলিটি বলে।

** প্রাত্যহিক জীবনে ভার্চুয়াল রিয়েলিটির প্রভাব–

 ভার্চুয়াল রিয়েলিটির প্রভাব উল্লেখ করা হলো-

১। এটি দ্বারা শিক্ষানবীশ ডাক্তারগন সহজে ও সুবিধাজনক উপায়ে বাস্তবে অপারেশন থিয়েটারে কাজ করার অভিজ্ঞতা অর্জন করতে পারে।
২। এটি দ্বারা বন্দরের কন্টেইনার উঠা-নামার কাজ সহজে সম্পন্ন করার অভিজ্ঞতা লাভ করা যায়।
৩। এটি দ্বারা হাই রাইজিং বিল্ডিং তৈরি করার অভিজ্ঞতা অর্জন করা যায়।
৪। আমাদের মতো উন্নয়নশীল দেশের ভায়োলেন্স দূরীকরণের কাজে ব্যবহার যায়।
৫। এটি দ্বারা শিক্ষকদের মধ্যে জ্ঞান ও অভিজ্ঞতা বিনিময়ের মাধ্যমে ভার্চুয়াল সেতুবন্ধন তৈরি করে শ্রেণীকক্ষে শিক্ষার গুণগত মানোন্নয়ন করা যায়।
৬। এটি দ্বারা স্বল্প খরচে ও স্বল্প সময়ে বিমান চালকদের প্রশিক্ষণ প্রদান করা যায়।
৭। মহাশূন্যে খেয়াযান পরিচালনা সম্পর্কিত যাবতীয় খুঁটিনাটি বিষয়গুলো সম্পর্কিত জ্ঞান অর্জন করা যায়।
৮। এটি দ্বারা চন্দ্র বিজয়ের স্মরণীয় মুহূর্তে নীল আর্ম স্ট্রং-এর সেই গর্বিত উচ্চারণ  ইত্যাদি অবিকল তাঁর কণ্ঠেই শোনা যায়।
৯। এটি দ্বারা হিলারী-তেনজিং কর্তৃক মাউন্ট এভারেস্ট জয়ের সেই মুহূর্তকে জীবন্ত করে দেখা যায়।

** আর্টিফিসিয়াল ইনটেলিজেন্স —

মানুষ যেভাবে চিন্তা ভাবনা করে কৃত্রিম উপায়ে কম্পিউটারে সেভাবে চিন্তা ভাবনার রূপদান দেওয়াকে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বলা হয়।

** কৃত্রিম জ্ঞান (বুদ্ধি) প্রযুক্তি বা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ব্যবহার —
 কৃত্রিম জ্ঞান প্রযুক্তির ব্যবহার উল্লেখ করা হলো-
১। স্বয়ংক্রিয়ভাবে তথ্য সংরক্ষণ করা যায়।
২। যেখানে অধিক তাপ, অধিক ঠান্ডা এবং মানুষের পক্ষে কাজ করা দূরূহ সেখানে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রযুক্তি ব্যবহার করে সহজে ব্যবসায়িক কার্য সম্পাদন করা যায়।
৩। নানারকম বিপজ্জনক ও পরিশ্রমসাধ্য কাজ যেমনঃ ওয়েল্ডিং, ঢালাই, ভারী মাল ওঠানো বা নামানো, যন্ত্র সংযোজন ইত্যাদি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রয্ুিক্ত ব্যবহার করে করা যায়।
৪। অনেক বড়,কঠিন ও জটিল কাজ কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রযুক্তি ব্যবহার করে করা যায়।
৫। ক্ষতিকর বিস্ফোরক শনাক্ত করা ও তা নিষ্কিয় করার কাজে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রযুক্তি ব্যবহার করা যায়।